BdNewsEveryDay.com
Wednesday, June 20, 2018

বিশ্বকাপ ২০১৮: টিটের হাতে নতুনভাবে গড়ে উঠেছে ব্রাজিল 

Wednesday, June 13, 2018 - 163 hours ago

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

২০১৪ বিশ্বকাপে আয়োজক দেশ ব্রাজিল ৭-১ গোলে হেরেছে জার্মানির কাছে। সেই যে ব্রাজিলের তরি ডুবলো, এরপর ডুঙ্গার হাত ধরেও যখন আর ডাঙ্গায় উঠতে পারে নাই, তখনি ত্রাণকর্তা হয়ে এলেন টিটে।তারপর সবকিছুই ইতিহাস।

দলে কিছু অদল-বদল করা হলো। চীনা লীগ থেকে পলিনিওকে ডেকে আনা হলো। সমালোচনা হলেও, পরে সিদ্ধান্ত সঠিক বলে প্রমাণিত হয়। সেন্টার ফরোয়ার্ড পজিশনে দুর্বলতা কাটাতে তরুণ গ্যাব্রিয়েল জেজুজকে নিয়ে ঝুঁকি নিলেন টিটে। সাথে সাথেই ফল পেলেন।

মাত্র দু-তিনটি পরিবর্তন এনেই টিটে ভালো ফল পেতে শুরু করলেন।

বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই না করার যে হুমকি তৈরি হয়েছিল, তা কেটে গেল। টিটে'র ব্রাজিল ১০টি ম্যাচ জিতলো, দুটো ড্র করলো, ৩০টি গোল দিল, গোল খেল মাত্র তিনটি। তারপর ইউরোপিয়ান বিভিন্ন দলের সাথে প্রীতি ম্যাচ গুলোতেও সেই সাফল্যের ধারা অব্যাহত রইল।



২০১৪ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে জার্মানির কাছে ৭-১ গোলে হারার পর কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন ব্রাজিলের ডিফেন্ডার ডাভিড লুইজ। তাকে স্বান্তনা দিচ্ছেন থিয়াগো সিলভা।

কীভাবে পারলেন টিটে?

স্বভাবতই প্রশ্ন উঠলো- কীভাবে একজন ব্যক্তি এই পার্থক্য তৈরি করতে পারলেন?

দুটো উত্তর - টিটের সন্দেহাতীত যোগ্যতা ছাড়াও তার পূর্বসূরি কয়েকজনের দুর্বলতা এবং সেইসাথে ব্রাজিলের ফুটবলের দুর্দশার শেষ প্রান্তে গিয়ে ঠেকা।

ব্রাজিলের ফুটবল অকস্মাৎ সর্বশ্রেষ্ঠ তকমা নিয়ে জন্ম নেয়নি। একটি প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়েই সুনাম এবং খ্যাতি অর্জিত হয়েছিল। ১৯৫৮ সাল থেকে ১৯৭০ এর মধ্যে তিনটি বিশ্বকাপ জয়ের পেছনে তাদের যে প্রস্তুতি এবং কৌশল ছিল, তা অন্যদের চেয়ে অনেক অগ্রসর ছিল।

১৯৫৮ সালেই ব্রাজিল দলে বিরাট সংখ্যায় সাপোর্ট-স্টাফ ছিল - ডাক্তার, ডেন্টিস্ট, ফিজিও, এমনকি ক্রীড়া বিষয়ক একজন মনোবিজ্ঞানী।

এছাড়া, উরুগুয়ে, আর্জেন্টিনা এবং হাঙ্গেরি থেকে আসা কোচদের ধ্যান-ধারণা নিজেদের কৌশলের সাথে যোগ করে নতুন এক ফুটবল স্টাইল তৈরি করেছিল ব্রাজিল।

চারজনের রক্ষণভাগের সূচনা করেছিল তারা। ১৯৫৮ সালে ব্রাজিল যখন রক্ষণভাগের নতুন সেই স্টাইল প্রবর্তন করলো, সেমিফাইনালের আগে তারা কোনো গোলই খায়নি। ১৯৭০ সালে এসে আরেক ধাপ এগিয়ে ব্রাজিল ফুটবলে প্রথমবারের মতো ৪-২-৩-১ পদ্ধতি চালু করেছিল।

কিন্তু ধারাবাহিকভাবে অসামান্য সাফল্যে ব্রাজিলের ফুটবলে আলস্য এবং অতিমাত্রায় আত্মবিশ্বাস জেঁকে বসে। ব্রাজিলিয়ানরা বিশ্বাস করতে শুরু করে যে ফুটবলে মেধা তাদের মজ্জাগত, চেষ্টার তেমন প্রয়োজন নেই।

ফলে, ফুটবলের যখন দ্রুত প্রসার হয়েছে , ব্রাজিল ধীরে ধীরে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

ইউরোপীয় ক্লাব ফুটবলের শীর্ষ স্তরে কোচ হিসাবে খুব কম ব্রাজিলিয়ানই এসেছে। যারা এসেছেন, তেমন সাফল্য তারা পাননি।

পেপ গার্দিওলা যখন এক দশক আগে ফুটবলের স্টাইলে বিপ্লব ঘটান, ব্রাজিল সেই ধাক্কায় বেসামাল হয়ে পড়ে।

ব্রাজিলের ফুটবলে অনেকেই দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতেন যে শারীরিক শক্তির ক্রমবর্ধমান প্রয়োগের কারণে পজেশন-ফুটবল সম্ভব নয়, একমাত্র উপায় হচ্ছে উইং দিয়ে ক্ষিপ্র গতিতে কাউন্টার-অ্যাটাক।

কিন্তু ধ্যান-ধারনায় ব্রাজিল যে কতটা পেছনে পড়ে গিয়েছিল, তার প্রমাণ হয়ে যায় যখন ২০১৪ সালের বিশ্বকাপে গার্দিওলার পাসিং সূত্র প্রয়োগ করে জার্মানি তাদেরকে সাত গোল দেয়।



১৯৯৪ সালের বিশ্বকাপে ব্রাজিলের অধিনায়ক ছিলেন ডুঙ্গা

টিটে- ইউরোপ থেকে শিক্ষা নিচ্ছেন

ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিয়ে অগ্রসর হওয়ার ক্ষেত্রে ব্রাজিলের যে ব্যর্থতা, টিটে তার ব্যতিক্রম।

তার সিভি বা বায়োডাটা দেখলে অবশ্য প্রথমে ব্যতিক্রমী তেমন কিছু চোখে পড়বে না। একটা ছেড়ে অন্য জায়গায় গিয়ে কোচিং করিয়েছেন তিনি, অনেক জায়গা থেকে বরখাস্ত হয়েছেন। কখনই ইউরোপে কাজ করেননি। তার যুক্তি ছিল এই বয়সে দ্বিতীয় একটি ভাষা শেখা তার পক্ষে সম্ভব হবে না।

কিন্তু যোগাযোগ এবং বোঝাপড়ার অসামান্য দক্ষতা রয়েছে টিটের। সেই সাথে রয়েছে একটি তীক্ষ্ণ অনুসন্ধিৎসু মন।

তার মন্ত্র - "কীভাবে শিখতে হয়, আমি তা শিখেছি।"

এই শতকের গোঁড়ায় তিনি যখন নজর কাড়তে শুরু করেন, টিটের পছন্দ ছিল ৩-৫-২ ঘরানার ফুটবল।

পরে, ইন্টারন্যাসিওনাল ক্লাবে আর্জেন্টাইন মিড-ফিল্ডার অন্দ্রেস আলেহান্দ্রোর সাথে কাজ করে ইউরোপীয় ফুটবল সম্পর্কে বিস্তর ধারণা পান তিনি। ইংলিশ ক্লাব পোর্টসমথে খেলার সুবাদে অলেহান্দ্রোই প্রথম টিটেকে ইউরোপিয়ান ৪-৪-২ ফুটবল বোঝানোর চেষ্টা করেন।

তারপর ইউরোপে এসে দীর্ঘদিন ধরে দিনের পর দিন তিনি প্রথম সারীর ক্লাবে কিছু ক্লাবের খেলা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করেন।

ইউরোপ থেকে পাওয়া জ্ঞান তিনি প্রয়োগ করেন করিন্থিয়ানস্‌ ক্লাবে। সাথে সাথেই ফল পান। ইউরোপীয় কায়দার আঁটসাঁট রক্ষণভাগের কল্যাণে ২০১১-১২ সালে ব্রাজিলিয়ান লীগ এবং দক্ষিণ আমেরিকান ক্লাব শিরোপা জেতে করিন্থিয়ানস্‌। এরপর ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপের ফাইনালে তারা হারায় ইংলিশ ক্লাব চেলসিকে।

এরপর ইউরোপীয় শীর্ষ ক্লাবগুলোকে আরো গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ শুরু করেন টিটে। করিন্থিয়ানস্‌ ২০১৫ সালে আবারো ব্রাজিল লীগে চ্যাম্পিয়ন হয়।

করিন্থিয়ানসের পর ইউরোপের শিক্ষা টিটে এখন প্রয়োগ করছেন ব্রাজিল জাতীয় দলে।

২০১৬ সালে নভেম্বরে আর্জেন্টিনাকে ৩-০ তে হারানোর পর আর্জেন্টাইন কোচ সেজার লুইজ মেনোট্টি ভূয়সী প্রশংসা করেন টিটের। "তিনি (টিটে) রক্ষণভাগকে ২০ মিটার সামনে নিয়ে গেছেন, ফলে পুরো টিম একসাথে খেলতে পারছে...এ যেন ১৯৭০ এর ব্রাজিল।"



ব্রাজিলের হয়ে ৫৩টি গোল করেছেন নেইমার

টিটে কি নেইমারের শ্রেষ্ঠটা আদায় করতে পারবেন?

ব্রাজিলে টিভি বিজ্ঞাপনে এখন হরদম টিটেকে দেখা যায়।যেখানে ডুঙ্গার ভাবমূর্তি ছিল একজন যোদ্ধার, টিটেকে দেখানো হয় একজন ধীর-স্থির জ্ঞানী ব্যক্তিত্ব হিসাবে যিনি চোখে চোখ রেখে কথা বলেন। একজন সমালোচক তাকে সাপুড়ের সাথে তুলনা করেছেন।

সত্যিই টিটে এখন পর্যন্ত ব্রাজিলকে মন্ত্রমুগ্ধ করে রেখেছেন। বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ার ম্যাচগুলোর টিভি রেটিং খুবই উঁচুতে ছিল।

রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক সঙ্কটে পর্যুদস্ত ব্রাজিলে এখন জাতীয় ফুটবল দল আশার একমাত্র আলো হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এখনই টিটে যদি ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দাঁড়াতেন, চোখ বুজে পার হয়ে যেতেন। অবশ্য এ নিয়ে রসিকতা করতেও রাজী নন তিনি।

না চাইতেই, ব্রাজিলে টিটের এখন নেইমারের মতই তারকা-খ্যাতি। তবে আগামী সপ্তাহগুলোতে এই দুজনের সম্পর্ক কেমন থাকবে, অনেক কিছুই নির্ভর করছে তার ওপর।

অবশ্য ২০১৪ সালের মতো বর্তমানের ব্রাজিল দলটি নেইমার নির্ভর নয়।

এই দলে এখন বোঝাপড়া চোখে পড়ার মতো। নেইমার যখন জখমের চিকিৎসা করছিলেন, সে সময় তাকে ছাড়াই দল প্রীতি ম্যাচে জার্মানি এবং রাশিয়াকে তাদের মাঠেই হারিয়েছে।

সন্দেহ নেই নেইমারের প্রতিভা দলের জন্য বিরাট শক্তি। কিন্তু এর দুটো সম্ভাব্য সমস্যাও রয়েছে।

এক, নিজের ব্যক্তিগত খ্যাতির জন্য নেইমার সচেষ্ট হতে পারে যেটা দলের স্বার্থের পক্ষে নাও যেতে পারে, যেটা চোখে পড়েছে নভেম্বরে লন্ডনের ওয়েম্বলিতে ইংল্যান্ডের সাথে একটি প্রীতি ম্যাচে। অন্য সমস্যাটি হলো- চাপের মুখে নেইমার মাঠে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারবে কিনা।

নেইমারকে নিয়ে এই দুটো সম্ভাব্য সমস্যার দিকে তীক্ষ্ণ নজর রাখতে হবে টিটেকে।

এছাড়া, নেইমারের মধ্যে ফাউলে জড়ানোর প্রবণতা রয়েছে। কোয়ালিফাইং রাউন্ডের ১৪টি ম্যাচে ছয়টি হলুদ কার্ড পেয়েছে সে। বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে একইরকম ঘটলে, গুরুত্বপূর্ণ কোনো ম্যাচ মিস করার ঝুঁকি থাকবে।

ব্রাজিল চায় নেইমার টুর্নামেন্টের শেষ পর্যন্ত প্রতিটি ম্যাচ যেন খেলতে পারে। তাহলেই ষষ্ঠবারের মতো এবং ৬০ বছরের মধ্যে প্রথমবার ইউরোপে তাদের বিশ্বকাপ জয়ের সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

 


bdnewseveryday.com © 2017 - 2018