BdNewsEveryDay.com
Wednesday, June 03, 2020

জাতির অর্থনৈতিক মুক্তির কাজটি শেষ করতে হবে : অর্থমন্ত্রী

Wednesday, October 09, 2019 - 838 hours ago

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তাফা কামাল বলেছেন, ‘আমরা জাতির পিতার স্বপ্ন এবং অর্থনৈতিক মুক্তির কাজটি করার জন্য আমরা বেঁচে আছি। তাই অর্থনৈতিক মুক্তির কাজটি আমাদের শেষ করতে হবে। আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। প্রধানমন্ত্রী অনুপ্রাণিত করছেন আমাদের। ’ বুধবার বিকেলে আওয়ামী লীগ চট্টগ্রাম নগর, উত্তর ও দক্ষিণের উদ্যোগে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আতাউর রহমান খান কায়সারের ৯ম মৃত্যুবার্ষিকীর সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম। পরিবারের পক্ষে বক্তব্য দেন সংসদ সদস্য ওয়াসিকা আয়েশা খান। এসময় বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নইমউদ্দিন চৌধুরী, খোরশেদ আলম সুজন, আলতাফ হোসেন বাচ্চু, উত্তর জেলা সাধারণ সম্পাদক এমএ সালাম, যুগ্ম সম্পাদক বদিউল আলম, দক্ষিণ জেলা সহ-সভাপতি মো. ইদ্রিস, উত্তর জেলা যুগ্ম সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ। সঞ্চালনায় ছিলেন দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান। অর্থমন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রামের মানুষ কায়সার ভাইকে এখনো ভালোবাসেন। আমি তার মতো হতে পারবো না। আমি চট্টগ্রাম কমার্স কলেজের ছাত্র ছিলাম। ছাত্রলীগ করতাম। আমি এখনো মনে করি আমি আওয়ামী লীগ নয়, ছাত্রলীগ করি। সিটি কলেজ ও কমার্স কলেজের ছাত্র সংসদে আমরা জিততাম। স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ‘কায়সার ভাইরা ক্ষণজন্মা পুরুষ। তারা মানুষের কল্যাণে জীবন উৎসর্গ করেছেন। তিনি যখন কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত হন তখন ৫ বার সভা হয়েছে। দুপুরে অফিসে, রাতে উনার বাসায় খেতাম। ষাটের দশকে কোরিয়ার অবস্থা আমাদের চেয়ে খারাপ ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর কোরিয়া ভাগ হয়। তাদের ঘরে খাবার ছিল না। স্কুল ছিল না। তাদের মায়েরা মাথার সোনালি চুল বেচে সন্তানকে স্কুলে পাঠাতেন। ৩০ বছরে অর্থনীতিতে সমৃদ্ধ দেশ হয়েছে। ’ উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘পৃথিবীতে এমন কোনো বড়ি নেই যা খেলে রাজনীতিবিদ হওয়া যায়। অনেক কথা টিভি পর্দায় বলা যায় না। আমরা যদি প্রয়াত নেতাদের স্মরণসভায় স্মৃতিচারণ শুনি, বঙ্গবন্ধুর বই ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ পড়ি তাহলে আদর্শ শিখতে পারি। ’


bdnewseveryday.com © 2017 - 2018