BdNewsEveryDay.com
Monday, July 22, 2019

ভয়ঙ্কর পথে পাকিস্তান-ভারত

Wednesday, February 27, 2019 - 838 hours ago

ভয়ঙ্কর পথে পাকিস্তান-ভারত কাশ্মীর সীমান্তের নিয়ন্ত্রণরেখায় মঙ্গলবার ভারত হামলা চালানোর পর গতকাল বুধবার পাকিস্তানও পাল্টা হামলা চালিয়েছে। দুটো ভারতীয় এয়ারক্র্যাফট ভূপাতিত করে দুই পাইলটকে আটকের কথা দাবি করেছে পাকিস্তান। আর দুদেশেই কমবেশি নিহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এর মধ্যে সাধারণ মানুষও রয়েছে। এতে দুটি দেশই ভয়ঙ্কর যুদ্ধের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। কাশ্মীর নিয়ে দুদেশের যুদ্ধের পরিধি প্রতিদিন বেড়েই চলেছে। এরই মধ্যে দুটি দেশ শান্তির পক্ষে কথা বলছে, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, অস্ত্র আমাদেরও আছে, আপনাদের আছে, আসুন আলোচনা করি। আর ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ চীনের সাথে এক বৈঠকে বলেছেন, পাকিস্তানের সঙ্গে উত্তেজনা বাড়াতে চায় না ভারত।  এদিকে গুলি করে দুটি ভারতীয় জঙ্গি বিমান ভূপাতিত করার বিষয়ে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গতকাল বুধবার এক বিবৃতিতে বলেছে, এই হামলার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে আমাদের অধিকার, ইচ্ছা ও আত্মরক্ষার ক্ষমতা দেখানো। উসকে দেওয়ার ইচ্ছা নেই আমাদের, কিন্তু আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত। এটা দৃষ্টান্ত মাত্র। পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর)-এর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আসিফ গফুর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতির বিষয়টি নিশ্চিত করে এই টুইট বার্তায় বলেছেন, নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারতীয় বিমান বাহিনীর অনুপ্রবেশের জবাবে পাকিস্তানের বিমান বাহিনী গতকাল সকালে হামলা চালিয়েছে। তিনি বলেন, পাকিস্তান বিমান বাহিনী ভারতীয় দুটি যুদ্ধবিমান গুলি করে ভূপাতিত করেছে। একটি বিমান আজাদ কাশ্মীরের ভেতরে ভূপাতিত হয়েছে, আরেকটি ভূপাতিত হয়েছে জম্মু ও কাশ্মীরের ভূখ-ে। একজন পাইলটকে আটক করা হয়েছে। টুইটের এক ঘন্টা পর এক সংবাদ সম্মেলনে আসিফ গফুর বলেছেন, আরেকজন পাইলটকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের সেনাবাহিনী ভারতের দুজন পাইলটকে গ্রেফতার করেছে। তাদের একজন আহত ছিলেন। তাকে সমন্বিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করানো হয়েছে। আশাকরি তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন। আরেকজন পাইলট আমাদের হেফাজতে আছেন। পাকিস্তান জানিয়েছে, তাদের হাতে এখন ভারতের দুই পাইলট বন্দি আছেন। তার মধ্যে একজনের একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। ভিডিওতে দেখা গেছে- চোখ বাঁধা অবস্থায় ভারতীয় বিমান বাহিনীর ইউনিফর্ম পরা এক লোক বলছে, আমার নাম উইং কমান্ডার অভিনন্দন এবং আমার সার্ভিস নম্বর ২৭৯৮১। আমি একজন ফ্লাইং পাইলট, আমার ধর্ম হিন্দু। তার কাছে আরো বিস্তারিত পরিচয় জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমি দুঃখিত স্যার, আমার এর চেয়ে বেশি বলার অনুমতি নেই। ভিডিওতে এরপর ওই উইং কমান্ডারের ইউনিফর্মে লাগানো ব্যাজ দেখানো হয়। ওই ভারতীয় পাইলট আবার বলেন, আমি কি একটি ছোট্ট তথ্য পেতে পারি স্যার?, আমি কি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর কাছে আছি? এছাড়া পাকিস্তান সেনাবাহিনী ওই দুই পাইলটের কাছে থাকা কাগজপত্র, ব্যক্তিগত কিছু জিনিস, অফিসিয়াল সরকারি নথি, একটি পিস্তলের ছবি প্রকাশ করেছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমও তাদের লাইভ আপডেট বিভাগে পাকিস্তান কর্তৃক গ্রেফতারকৃত পাইলটের ভিডিও প্রকাশের খবর দিয়েছে। বুধবার ভোররাতে ভারতীয় যুদ্ধবিমান পাকিস্তানের ভূখ-ে ঢুকে হামলা চালানোর পর উত্তেজনার সূত্রপাত। পাক সেনা কর্মকর্তা বলেন, আজকে আমাদের হামলা ছিল আত্মরক্ষা জন্য। আমরা কোনো বিজয় দাবি করছি না। আমাদের লক্ষ্য ঠিক করেছে এবং নিশ্চিত করেছে যাতে কোলাটেরাল ড্যামেজ (বেসামরিক নাগরিকদের ক্ষয়ক্ষতি) না হয়। আমাদের বার্তা হচ্ছে, আমাদের ক্ষমতা রয়েছে তবুও শান্তি চাই। আজ সকালে নিয়ন্ত্রণরেখায় ছয়টি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানে আমাদের বিমান বাহিনী। কারণ রাষ্ট্রের প্রতি আমরা দায়বদ্ধ এবং আমরা শান্তি চাই। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি সামরিক কোনো স্থাপনায় আমরা আঘাত করব না। যুদ্ধবিমান মিগ-২১ ও পাইলট নিখোঁজ, স্বীকার করল ভারত কাশ্মীরে অভিযানের জবাবে ভারতের সেনাবাহিনীর বিভিন্ন স্থাপনা লক্ষ্য করে পাকিস্তান বিমানবাহিনীর যুদ্ধবিমান থেকে হামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে নয়াদিল্লি। গতকাল বুধবার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা রাভিশ কুমার এক ব্রিফিংয়ে বলেন, ভারতের হামলার জবাবে ভারতীয় সেনাবাহিনীর স্থাপনা টার্গেট করেছে পাকিস্তানি বিমানবাহিনীর যুদ্ধবিমান। পাকিস্তানের এই চেষ্টা তাৎক্ষণিকভাবে নস্যাৎ করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি। একই সঙ্গে পাক-ভারত দুই দেশের সামরিক বিমান ভূপাতিত করার পাল্টাপাল্টি দাবির ব্যাপারে তিনি বলেছেন, ভারতীয় যুদ্ধবিমান মিগ-২১ থেকে গুলি চালিয়ে পাকিস্তানি যুদ্ধবিমান এফ-১৬ ভূপাতিত করা হয়েছে। ভারতের একটি মিগ-২১ যুদ্ধবিমান ও বিমানের একজন পাইলট নিখোঁজ রয়েছেন বলে স্বীকার করেছেন রাভিশ কুমার। এদিকে গতকাল সকালে পাকিস্তান বলছে, তারা ভারতের কোনো সামরিক স্থাপনা লক্ষ্য করে হামলা চালায়নি। একই সঙ্গে তাদের যুদ্ধবিমান এফ-১৬ ভূপাতিত করার যে দাবি ভারত করেছে সেটিও প্রত্যাখ্যান করেছে ইসলামাবাদ। তবে আকাশসীমায় অনুপ্রবেশের অভিযোগে গুলি চালিয়ে ভারতের দুটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার দাবি করেছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। একই সময়ে জম্মু-কাশ্মীরে আকাশসীমা লঙ্ঘনের সময় পাকিস্তানি একটি বিমান ভূপাতিত করার পাল্টা দাবি জানিয়েছে ভারত। গতকাল সকালের দিকে পাল্টাপাল্টি বিমান ভূপাতিত করার এই দাবি করে। পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের (আইএসপিআর) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আসিফ গফুর বলেছেন, ভারতের বিমান বাহিনীর একটি বিমান পাক-অধিকৃত কাশ্মীরে, অন্যটি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে ভূপাতিত হয়েছে। এমনকি আটক ভারতীয় পাইলট ও ভূপাতিত যুদ্ধবিমানের ধ্বংসাবশেষের ছবি এবং ভিডিও প্রকাশ করেছে পাকিস্তান। ওই ভিডিওতে ভারতীয় পাইলটকে স্বীকারোক্তি দিতেও শোনা যায়। অস্ত্র আমাদেরও আছে, আপনাদের আছে, আসুন আলোচনা করি : ইমরান খান প্রতিবেশী ভারতের সাথে সামরিক উত্তেজনা বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ভাষণে তিনি বলেন, ‘অস্ত্র আমাদেরও আছে, আপনাদের আছে, আসুন আলোচনার টেবিলে বসি।’ গতকাল সকালে পাকিস্তান সেনাবাহিনী কর্তৃক ভারতের দুটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত ও ভারতীয় ভূখ-ে বোমা নিক্ষেপের পর বিকালে ৬ মিনিটের সংক্ষিপ্ত এই ভাষণে ইমরান খান ভারতকে আলোচনার টেবিলে বসার আহ্বান জানিয়েছেন। ভাষণের শুরুতে পাক প্রধানমন্ত্রী তার দেশের জনগণের উদ্দেশে বলেন, গতকাল সকাল থেকে ঘটা ঘটনা প্রবাহের প্রেক্ষিতে আমি জাতিকে আত্মবিশ্বাস জোগাতে চেয়েছি। পুলওয়ামার ঘটনার পর আমরা ভারতকে শান্তির প্রস্তাব দিয়েছিলাম। ওই হামলায় যারা স্বজন হারিয়েছেন সেসব পরিবারের কষ্ট আমি অনুভব করেছি। ঘটনার হাসপাতালে গিয়ে ভিকটিমদের কষ্ট দেখেছি। আমরা ভারতকে বলেছিলাম ঘটনার তদন্ত করবো। তাদেরকে সহায়তা করতে প্রস্তুত ছিলাম। কিন্তু আশঙ্কা করেছিলাম ভারত আগ্রাসন চালাতে পারে। এজন্য তাদেরকে হুশিয়ার করেছিলাম। কাল যখন ভারত হামলা করলো, প্রথমে আমাদের আর্মি কর্তৃপক্ষকে ডেকে ক্ষয়ক্ষতি পরিমাপ করতে বলেছিলাম। এরপর আমরা ততটুকুই করেছি যতটুকুর মাধ্যমে এই বার্তা দেয়া যায় যে, আপনারা যদি আমাদের দেশে প্রবেশ করেন, তাহলে আমারও একই কাজ করব। তাদের দুটি মিগ ভূপাতিত করা হয়েছে। এখন সময় এসেছে মাথাকে কাজে লাগিয়ে প্রজ্ঞার সাথে আচরণ করা। ইমরান খান আরো বলেন, সব যুদ্ধই ভুল হিসেব নিকেশের মাধ্যমে শুরু হয়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ কয়েক সপ্তাহের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে বলে ধারণা করা হয়েছিল। কিন্তু শেষ হয়েছিল ছয় বছর পর। একইভাবে কেউ ধারণা করেনি সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে ১৭ বছর লেগে যাবে। আমি ভারতের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি, আপনাদের হাতে যেসব অস্ত্র আছে আমাদের হাতেও সেগুলো আছে। কিন্তু প্রশ্ন হলো আমরা উভয়ে কি কোনো ভুল হিসেবে নিকেশের মাশুল বইতে পারবো? যদি পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়, তাহলে তা আমার কিম্বা মোদির কারো নিয়ন্ত্রণেই থাকবে না। পুলওয়ামা হামলার ভুক্তভোগীদের কষ্ট আমরা অনুধাবন করি এবং এ বিষয়ে তদন্ত ও সংলাপের জন্য আামরা প্রস্তুত। চলুন এক সঙ্গে টেবিলে বসি এবং আলোচনার মাধ্যমে সমস্যাটার সমাধান করি। পাকিস্তানের সঙ্গে উত্তেজনা বাড়াতে চায় না ভারত : চীনকে বললেন সুষমা ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ গতকাল বুধবার বলেছেন, নয়াদিল্লি ইসলামাবাদের সঙ্গে সম্পর্কের উত্তেজনা বৃদ্ধি করতে চায় না। চীনে ১৬তম ত্রিদেশীয় রাশিয়া-ভারত-চীনের বা আরআইসি’র বিদেশমন্ত্রীদের সম্মেলনে সুষমা স্বরাজ এই মন্তব্য করেন বলে জানায় ভারতীয় পত্রিকা দ্য হিন্দু। খবরে বলা হয়, নিয়ন্ত্রণরেখা লঙ্ঘন করে পাকিস্তানে ভারতীয় বিমান বাহিনীর হামলার জন্য পাকিস্তানকেই দায়ী করেন সুষমা স্বরাজ। তিনি বলেন, পাকিস্তান পুলওয়ামা হামলার জন্য দায়ী আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদের (জেইএম) বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে না পারায় ভারতীয় বিমান বাহিনী পাকিস্তানে হামলা করেছে। ‘পাকিস্তান তাদের মাটিতে সন্ত্রাসী সংগঠনের অস্তিত্বের কথা স্বীকার করে না এবং তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বারবার অস্বীকার করেছে। জেইএম ভারতের বিভিন্ন জায়গায় আরও হামলা চালানোর পরিকল্পনা করছে এমন বিশ্বাসযোগ্য তথ্য পাওয়ায় আগেভাগেই তা ঠেকাতে হামলা চালানো হয়েছে। বেসামরিক লোকজনের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ওই লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে,’ বেঠকে বলেন স্বরাজ। তিনি আরও বলেন, কোনো সামরিক স্থাপনায় হামলা করা হয়নি। ভারতে আবারও সন্ত্রাসী হামলা ঠেকাতে শুধুমাত্র জেইএম’র স্থাপনায় আঘাত করাই স্বতঃপ্রণোদিত এই হামলার উদ্দেশ্য ছিল। দ্য হিন্দু জানায়, ভারত ‘সংযত আচরণ’ করছে এই কথা জোর দিয়ে চীনকে জানাতেই স্বরাজ বলেন, ভারত এই পরিস্থিতির আরো অবনতি চায় না। ভারতের জি নিউজ জানায়, গতকাল বুধবার চীন সফরে যান ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। উহেনে অনুষ্ঠিত ১৬তম ত্রিদেশীয় রাশিয়া-ভারত-চীন পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের বৈঠকে প্রথমেই চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রী ওয়াং ই-র সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বসেন তিনি। এদিন তার বক্তব্যের প্রায় পুরোটাতেই ছিল পাকিস্তানের আশ্রয়ে সন্ত্রাসের বিষয়ে অভিযোগ। কীভাবে সিআরপিএফ জওয়ানের উপর আত্মঘাতী হামলা করা হয়েছে, সে বিষয়ে চীনকে অবগত করেন তিনি। তিনি বলেন, আমি যে সময় চীন সফর করছি, সে সময় সন্ত্রাসে জর্জরিত ভারত দুঃখে, ক্ষোভে ফুঁসছে। জম্মু-কাশ্মীরে ন্যাক্কারজনকভাবে জঙ্গি হামলা চালানো হয়। তবে, ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী মনে করিয়ে দেন, পাক মাটিতে ভারতের হামলা ছিল সম্পূর্ণ অসামরিক। তার দাবি, পাক নাগরিক বা সেনার উপর হামলা চালানো হয়নি। বিশ্বাসযোগ্য গোয়েন্দা তথ্য এবং নিখুঁত লক্ষ্যে জঙ্গি নিধন করা হয়। চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে পুলওয়ামার ঘটনার প্রসঙ্গ তুলে ধরেন সুষমা স্বরাজ। পাশাপাশি এ-ও বলেন, আন্তর্জাতিক মঞ্চে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানানো হয়েছে। উল্লেখ্য, এই মুহূর্তে আরআইসি (রাশিয়া-ভারত-চীন) বৈঠকে বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের অংশগ্রহণকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন কূটনীতিকরা। পাকিস্তান-ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদকে কালো তালিকাভুক্ত করতে ভেটো প্রদানকারী দেশ আমেরিকা, রাশিয়া, ফ্রান্স ও ব্রিটেন সমর্থন জানালেও বরাবরই বাধা দিয়ে এসেছে চীন। সম্প্রতি পুলওয়ামা ঘটনার পরও চীনের অবস্থান বদল হয়নি। আজহার মাসুদ-সহ তার সংগঠন জইশের উপর নিষেধাজ্ঞা চাপাতে পাক ‘বন্ধু’ চীনকে সুষমা স্বরাজ কতটা বুঝাতে পারেন, সেটাই এখন দেখার বিষয়। হেলিকপ্টার বিধ্বস্তে ভারতীয় বিমানবাহিনীর ৬ কর্মকর্তা নিহত কাশ্মীরে পাকিস্তানের হামলায় ভারতীয় বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের ঘটনায় সাতজন নিহত হয়েছেন বলে গতকাল বুধবার দেশটির গণমাধ্যমের সংবাদে জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, নিহতদের মধ্যে ৬ জন বিমানবাহিনীর কর্মকর্তা আর একজন বেসামরিক নাগরিক। এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, গতকাল আনুমানিক সকাল ১০টায় কাশ্মীরের বুদগ্রামের গারেন্দ কালান গ্রামের কাছে খোলা একটি মাঠে রাশিয়ার তৈরি ভারতীয় বিমানবাহিনীর এমআই-১৭ হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হয়। হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের ঘটনার বেশ কিছু ভিডিও থেকে দেখা যাচ্ছে, ভয়াবহ অগ্নিকা-ের দৃশ্য। পাশের গ্রামগুলো থেকে অনেক মানুষ দুর্ঘটনাস্থলে ভিড় করছেন। বিধ্বস্ত হেলিকপ্টারটি থেকে দু’টি লাশ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারত ও পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষে নিহত ৪ কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণরেখা বা লাইন অফ কন্ট্রোল বরাবর ভারত আর পাকিস্তানি বাহিনীর মধ্যে ব্যাপক গোলাগুলি হয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। ভারতীয় গোলার আঘাতে পাকিস্তানের তিনজন নারী ও একটি শিশু মারা গেছে। আহত হয়েছেন ১১ জন। অন্যদিকে পাকিস্তানি বাহিনীর ছোড়া গোলায় পাঁচজন ভারতীয় সৈনিকের আহত হওয়ারও খবর এসেছে। মঙ্গলবার ভোররাতে পাকিস্তানের আকাশ সীমার প্রায় ৮০ কিলোমিটার ভেতরে ঢুকে ১২টি যুদ্ধ বিমান বোমাবর্ষণ করে জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহম্মদের একটি প্রশিক্ষণ শিবির ধ্বংস করে দিয়েছে বলে দাবি করেছে ভারত। ভারতীয় বিমানবাহিনী যে পাকিস্তানের আকাশসীমার ভেতরে ঢুকে পড়েছিল, তা স্বীকার করলেও পাকিস্তানী বাহিনী জানিয়েছে, তাদের বিমানবাহিনী পাল্টা ধাওয়া করলে জঙ্গলের ওপরে বোমা ফেলে চলে যায় ভারতীয় বিমানগুলি। এতে কোনো প্রাণহানি হয়নি বলেও দাবী করে পাকিস্তান। ওই ঘটনার পর থেকেই দুই দেশের নিয়ন্ত্রণ রেখার দুপাশে উত্তেজনা শুরু হয়। বেশ কয়েকটি সেক্টরে গোলাগুলি বিনিময়ে হয়েছে। পাকিস্তান থেকে বিবিসি-র সংবাদদাতারা জানাচ্ছেন, নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর জরুরী অবস্থা ঘোষণা করেছে পাকিস্তান। ওই এলাকার বেসামরিক নাগরিকদের নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে দূরে থাকতে বলা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ রেখার কাছাকাছি সব সরকারি স্কুল কলেজ বন্ধ করে দিয়েছে পাকিস্তান প্রশাসন। মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে কোটলি সেক্টরে ভারতীয় বাহিনীর ছোঁড়া গোলায় চারজন নিহত হন। এছাড়াও রাওয়লাকোট, ভাঁওর, চাকৌতে মেশিনগান থেকে গুলি চালিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। তারা মর্টারও ছোড়ে বলে অভিযোগ করেছে পাকিস্তান। অন্যদিকে ভারতও অভিযোগ করছে যে পাকিস্তানই নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর সংঘর্ষ বিরতি লঙ্ঘন করে গুলি চালিয়েছে। ভারতীয় সেনাবাহিনী বলছে, কাশ্মীরের আখনুর, নৌশেরা সেক্টরগুলিতে কোনো প্ররোচনা ছাড়াই সংঘর্ষ বিরতির চুক্তি ভেঙেছে পাকিস্তান। ভারতীয় সেনাও উপযুক্ত জবাব দিয়েছে। এইসব গোলা বিনিময়ের ঘটনায় ১১ জন ভারতীয় সেনাসদস্য আহত হয়েছে। তাদের সেনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ভারতের দিকেও পুঞ্চ এবং রাজৌরি জেলায় নিয়ন্ত্রণ রেখার পাঁচ কিলোমিটার পর্যন্ত এলাকায় সব স্কুল পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া অবধি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। শ্রীনগর থেকে বিবিসি সংবাদদাতা জানাচ্ছেন, উত্তর কাশ্মীরের উরি সেক্টরে নিয়ন্ত্রণ রেখার দুদিক থেকেই ব্যাপক গোলাগুলি চলার খবর পাওয়া যাচ্ছে। আবার সোফিয়ানে সন্দেহভাজন জৈশ-ই-মোহম্মদ সদস্যদের সঙ্গে নিরাপত্তাবাহিনীর একটি এনকাউন্টার হয়েছে যাতে দুজন জৈশ জঙ্গি মারা গেছেন। ভারত-পাকিস্তানকে শান্ত থাকতে বলল রাশিয়া ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে চলমান যুদ্ধপরিস্থিতি নিয়ে প্রথমবারের মতো কথা বলেছে রাশিয়া। উদ্ভূত জরুরি পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে সীমান্তের ঘটনা নিয়ে দুই দেশকেই শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছে দেশটি। রুশ প্রেসিডেন্টের প্রেস সচিব দিমিত্রি মেদভেদেভে গতকাল বুধবার বলেন, ভারত ও পাকিস্তানের সম্পর্কের অবনতিতে রাশিয়া উদ্বিগ্ন। এর আগে মঙ্গলবার হামলার পর চীনও আহ্বান জানায়, ভারত ও পাকিস্তানকে শান্ত থাকার। বেইজিংয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়, আমরা আশা করি ভারত আর পাকিস্তান উভয়ই সংযত হয়ে সমঝোতার চর্চা করবে। যা দেশ দুটির মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে একটা স্থিতিশীল পরিবেশ তৈরিতে সহায়ক। আর এর মাধ্যমেই তাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটবে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের মুখপাত্র মাজা কোচিজানসিক বলেন, আমরা দুই দেশের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছি। আমরা বিশ্বাস করি দুই দেশের সর্বোচ্চ সংযত দরকার রয়েছে পরবর্তী উত্তেজনা এড়াতে। পাকিস্তানের আকাশসীমায় বাণিজ্যিক বিমান চলাচল বন্ধ গতকাল বুধবার পাকিস্তানের আকাশসীমায় বাণিজ্যিক বিমান চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সিভিল এভিয়েশন অথরিটি (সিএএ) কর্তৃপক্ষ। পাকিস্তানের ডন পত্রিকা জানায়, দেশটির সশস্ত্র বাহিনীর মিডিয়া বিভাগ বর্তমান নিরাপত্তা পরিস্থিতিতে দেশটির আকাশসীমা বন্ধ রাখার কথা জানানোর পর সিএএ কর্তৃপক্ষ  টুইটারে এই ঘোষণা দেয়। আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচল পর্যবেক্ষণ সংস্থা ফ্লাইট রাডার ২৪ জানায়, সিএএ যখন এই ঘোষণা দেয় তখন পাকিস্তানের আকাশসীমায় প্রায় কোনও বিমানই উড়ছিল না। আগে একজন এয়ারপোর্ট কর্মকর্তা ডননিউজ টিভিকে বলেন, পেশোয়ারের বাচা খান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে সাময়িকভাবে বাণিজ্যিক বিমান চলাচল বন্ধ রেখেছে কর্তৃপক্ষ। আবারও বাণিজ্যিক বিমান চলাচল চালু করার আগ পর্যন্ত বিমানবন্দরটিকে সামরিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হবে। সেখানে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে বলেও জানান একজন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা। ‘সব বেসামরিক বিমান চলাচল বাতিল করা হয়েছে,’ বলেন তিনি। লাহোর ও করাচী থেকেও একই রকম খবর পাওয়া গেছে বলে জানায় ডন। করাচী বিমানবন্দরের একটি সূত্র ডননিউজটিভিকে জানায়, পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনস (পিআইএ)’র দিল্লিগামী ফ্লাইট পিকে-২০ লাইন অফ কন্ট্রোলে উত্তেজনার কারনে বাতিল করা হয়েছে। পিআইএ’র আরেকটি ম্যানচেস্টারগামী ফ্লাইট পিকে-৭০৯ও বাতিল করা হয়, জানায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।


bdnewseveryday.com © 2017 - 2018