BdNewsEveryDay.com
Friday, January 18, 2019

কাজেও চমক দেখানো চাই

Friday, January 11, 2019 - 159 hours ago

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার টানা তৃতীয় ও মোট চতুর্থ মন্ত্রিসভা সবার জন্য চমক নিয়েই এলো। একাদশ জাতীয় সংসদে তার দল আওয়ামী লীগ ও মহাজোটের বিজয়ও ছিল চমকে দেওয়ার মতো। সেই চমকের ওপর এবার তাকে নিয়ে ৪৭ সদস্যের মন্ত্রিসভা এলো নতুনতর চমকের জন্ম দিয়ে। দেশবাসী চমকেছে বটে তবে মনে হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর মতোই তারাও নতুনের ওপর আস্থা রাখতে চাইছে। আমরা আস্থার সঙ্গে আপাতত শেখ হাসিনার নতুন মন্ত্রিসভাকে জানাই অভিনন্দন। কামনা করি তাদের সাফল্য। আওয়ামী লীগ নেতা বলতে পঁচাত্তর-পরবর্তীকালে, বিশেষত নব্বইয়ের পরে যাদের বোঝাত সেসব নেতা সদলে বাদ পড়েছেন এবার। বিগত কয়েক মন্ত্রিসভায় দক্ষ ও সৎ হিসেবে যাদের প্রশংসা শোনা যাচ্ছিল তারাও অনেকেই বাদ পড়েছেন। বামদল থেকে ৭৫-পরবর্তীকালে আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া নেতা এবং জোট-সহযোগী বাম নেতারাও মন্ত্রিসভা থেকে আপাতত বাদ রয়েছেন। পুরনোদের মধ্যে মন্ত্রিত্ব হারান ৩৬ জন, আবার প্রথমবার সাংসদ হয়েই মন্ত্রিত্ব পেয়েছেন ৪ জন। দেখা যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী তারুণ্যের ওপর এবং নতুনের ওপর আস্থা রেখেছেন। তার আস্থা পেয়েছেন ছাত্রলীগের অনেক সাবেক নেতা। মনে হচ্ছে মন্ত্রিসভার ওপর প্রধানমন্ত্রীর পাশাপাশি দলের সাধারণ সম্পাদকও প্রভাব বজায় রাখতে পারবেন। অবশ্য মন্ত্রিসভা গঠন যেমন, তেমনি যে কোনো সময় তাতে রদবদলের একক ক্ষমতা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। যাহোক অনেক নতুন মুখ নিয়ে গঠিত নতুন সরকারের কাছে মানুষের প্রত্যাশা অনেক, সে কথা তারা এবং প্রধানমন্ত্রী স্মরণ রাখলেই চলেবে। মনে রাখতে হবে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কেই আছে। বর্তমানে আমাদের প্রবৃদ্ধির হার সাতের ওপরে, আগামী দিনে তা আরও বাড়াতে হবে। এখন আমরা নিম্নমধ্যম আয়ের দেশ, সরকারের এ মেয়াদেই দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করার পরিকল্পনা রয়েছে। এর মধ্যে আগামী বছর বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং তার পরের বছর অর্থাৎ ২০২১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করবে দেশ। তাই বলা যায় এই মন্ত্রিসভার সামনে অনেক দায়িত্ব অনেক চ্যালেঞ্জ। সরকারের সামনে একটি বড় চ্যালেঞ্জ হবে টানা এক দশকের বেশি ক্ষমতায় থাকার সুবিধা নিয়ে নানা স্তরে অনেক নেতাকর্মী সমাজে নানাভাবে দাপট প্রদর্শন করতে চাইবে তাদের সংযত রাখা। অভ্যাসবশত এসব উচ্চাভিলাষী ব্যক্তিরা ক্ষমতাবান অনেকের প্রশ্রয়ও পেতে পারে। এমন ঘটনা কিন্তু সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ করবে এবং তাতে দলের ও দেশের ভবিষ্যৎ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। জনগণ জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি জনবান্ধব, ভবিষ্যৎমুখী, দক্ষ, উদ্যোগী, কর্মচঞ্চল সরকার প্রত্যাশা করে। আশা করি নতুন সরকার জনগণের প্রত্যাশা পূরণে আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করবে।


bdnewseveryday.com © 2017 - 2018