BdNewsEveryDay.com
Tuesday, December 11, 2018

এটি ভোট ডাকাতির নতুন একটি সংস্করণ: বিএনপির পরাজিত মেয়র প্রার্থী

Wednesday, May 16, 2018 - 838 hours ago

বাংলাদেশের খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে ‘ভোট ডাকাতির নতুন সংস্করণ’ বলে অভিহিত করেছেন বিএনপির পরাজিত মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু।

আজ (বুধবার) বেলা ১১টায় নগরের কে ডি ঘোষ রোডে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মঞ্জু এ কথা বলেন।  বিএনপি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। মঞ্জু বলেন, “আমি নির্বাচনের প্রচারণার সময় যেসব কথা বলেছিলাম তা সত্য প্রমাণিত হয়েছে। এই সরকার ভোট ডাকাতির সরকার। ভোটারবিহীন নির্বাচনের সরকার। এই সরকার যেনতেন প্রকারে জিততে চায়। তারা হারতে চায় না। যা গতকাল খুলনা ও দেশবাসী দেখেছে।”

সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে মঞ্জু বলেন, “আপনাদের লেখনীর মাধ্যমে ভোট কারচুপির আরও অনেক তথ্য বেরিয়ে এসেছে। যা গতকাল আমরা জানতাম না। আজকের পত্রপত্রিকার রিপোর্ট পড়ে যা জানতে পেরেছি এটি নতুন একটি সংস্করণ ভোট ডাকাতির।”

তিনি আরও বলেন, “আমি প্রচারণার শেষ দিনে বলেছিলাম-নির্বাচনে বিজয়ী হতে সরকার নতুন ইলেকশন ইঞ্জিরিয়ারিং করছে। যে কথাগুলো বলেছিলাম সেগুলোই শতভাগ সত্য হয়েছে। সেইসঙ্গে যুক্ত হয়েছে আরও নতুন কিছু বিষয়। একটি শহরের স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিজয়ী হতে সরকার রাষ্ট্রীয় সকল শক্তি এখানে নিয়োজিত করেছিল। রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের মাধ্যমে জনগণের ভোটাধিকারকে ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। আমি এই কথাগুলো বারবার বলেছি কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।”

উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশে প্রশ্ন রেখে মঞ্জু বলেন, একটি মেয়র নির্বাচনে পরাজিত হলে কী এমন হতো সরকারের?

গতকাল সোমবার খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক ১ লাখ ৭৬ হাজার ৯০২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে জয় লাভ করেছেন। অন্যদিকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম মঞ্জু পেয়েছেন ১ লাখ ৮ হাজার ৯৫৬ ভোট। তবে বিএনপির এই প্রার্থী আজ বলেছেন, ব্যাপক অনিয়ম করেই আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে জয়ী করা হয়েছে।

১০৫ কেন্দ্রে ভোট-ডাকাতির অভিযোগের পাশাপাশি মঞ্জু ৪৫টি কেন্দ্রে ভোটের তদন্ত দাবি করেছেন।

আজকের সংবাদ সম্মেলনে তিনি গতকালের নির্বাচনে অনিয়মের জন্য দায়ী পুলিশ ও নির্বাচন কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করা এবং তাঁদের বিচারও দাবি করেন।#

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১৬

 


bdnewseveryday.com © 2017 - 2018